Mar 2, 2007

কুকুর কাহিনীঃ দে দৌড়


পেন্নাম, হিমুর কুত্তা সমাচার পড়ে কুকুর নিয়া, এক পশলা লিখতে ইচ্ছা হল।

লোকে কুত্তার বাচ্চা গালিটা কেন দেয় বুঝা দুষ্কর।আমার কুকুর অভিজ্ঞতা বড়ই সুখকর। নিজে কখনো কুকুর পুষি নাই। গুল মোহাম্মদ যে কারণে পোষে না সে কারণে। তবে কুকুর প্রানীটা বরাবরই ভালো লাগে।

ক.

জন্মের পর থেকেই বিষয়টা এরকম ছিল তা না। আমার বয়স তখন ৬, দেখতে একই রকম আমার ভাইয়ের বয়স ৭.৫। নানা বাড়ীতে, কাঁঠাল গাছের পিছনে, খড়ের গাদায় উঁকি-ঝুঁকি দিয়ে দেখার চেষ্টা করছি। কুকুরী চারটা বাচ্চা দিয়েছে। বিপুল আগ্রহের পরিসমাপ্তি ঘটল যখন মা কুকুর গা ঝাড়া দিয়ে উটকো আনন্দে ট্যাক্স বসিয়ে দিল। আমি আমার স্বভাব সুলভ ফিচকেমি দিয়ে পার, বদ্দা একাই ট্যাক্স পে করল দুইজনের। অথচ সামনে ছিলাম আমি, কামড়টা আমার খাওয়ার কথা।

খ.

এরপরের আরেকটা উল্লেখযোগ্য ঘটনা, তখন পড়ি ক্লাস সেভেন কি এইটে। পহেলা বৈশাখের বিকেল, ডি. সি হিল জুড়ে চলছে ছবি আঁকা কম্পিটিশন।

তার একটু আগেই বুইজ্জার গিরা (বুড়া মানুষের জয়েন্ট) নামক একটা মাঠে গিয়েছি আমি আর আমার দোস্ত তানসেন। ও সেতার না বাজালেও বারান্দার গ্রিল ধরে ঝুলে '' র্পূব দিগন্তে র্সূয উঠেছে'' ধরনের অনুপ্রেরনাদায়ক গান গাওয়ায় পারর্দশী ছিল।

বুইজ্জার গিরা আসলে পারসোনাল প্রর্পাটি। আমরা খবর পেয়েছি ওখানে খুব ভাল মরিচের চারা পাওয়া যাবে। যেই কথা সেই কাজ, স্লোপ বেয়ে নেমে গেলাম। ঘুরে দেখছি এই সময় হঠাৎ, আগ্রাসী তৎপরতা নিয়ে হাজির একটা কুকুর। জীবনে এই একবারই আমি কুকুর দেখে ভয় পেয়েছি। দে ছুট, ১০০ মিটারে রের্কড করছি দুই বন্ধু কম্পিটিশন দিয়ে। গেটের কাছে এসে, দুইজন দুই দিকে চলে গেলাম, কুকুর বেচারা বিভ্রান্ত হয়ে আর ধাওয়া করলো না।

গ.

বাদবাকী প্রত্যেক বারই যেখানে যে কুকুরের পাশ দিয়ে হেঁটে গেছি, কোনো এক অজানা কারণে আমাকে পছন্দ করে ফেলে কুকুর গুলো। পিছু নেওয়া শুরু করে। কে জানে আমার মধ্যে ওরা গুল মোহাম্মদের প্রতিভা দেখতে পায় কি না?

বড়ই বিচিত্র প্রানী।

2 comments:

konfusias said...

কুকুর বিড়াল কোনটাই পছন্দ না। ছোটবেলায় বিড়াল পোষার চেষ্টা করেছিলাম, পরে ক্ষ্যান্ত দিয়েছি।
এখন যে কোন পোষা প্রাণী থেকেই দূরে থাকি।

techshare said...

চমৎকার কাহিনী। কুকুর প্রাণীটাকে আমি ভালই ডরাই, তবে প্রাণীটাকে সুইট ও লাগে। বরং সেই দিক থেকে দেখতে পারি না বিড়ালকে।

ধন্যবাদ চমৎকার একটি ব্লগ এর জন্য।